%e0%a6%ad%e0%a7%8b%e0%a6%a6%e0%a6%be%e0%a6%b0 %e0%a6%ad%e0%a6%bf%e0%a6%a4%e0%a6%b0%e0%a7%87 %e0%a6%86%e0%a6%99%e0%a7%8d%e0%a6%97%e0%a7%81%e0%a6%b2 %e0%a6%a2%e0%a7%81%e0%a6%95%e0%a6%be%e0%a6%b2

আমি ছোট বেলা থেকেই সেক্স নিয়ে অনেকটা উতসাহি এবং সকল বিষয়ে আমার ব্যপক কৌতুহল। কেমন করে যেন সেক্স বিষয়ে আমার আগ্রহটা তখন থেকেই আমার মনের মাঝে ঢুকে গেছে। আমিও সকল সময় এই চিন্তাতেই থাকি। আমি ঢাকাতে বড় হয়েছি। ৮০ এর দশকে আমার ছেলেবেলা কাটে ঢাকার পূর্ব দিকের একটি এলাকাতে। সেই সময়টাতে ঢাকা অনেকটাই ফাকা ছিল, মানুষজনের এতটা আনাগোনা ছিল না।একদিন আমি আর রেহানা বিকেল বেলাতে দুজনে বসে বসে গল্প করছি, পুকুর পাড়ে। পুকুর পাড় টা একটু জন বিরল এলাকা ছিল। চারপাশে নারকেল গাছ। একটি গাছের নিচে বসে আছি, আমরা দুজনে। এমন সময় রেহানা বললো, রাহাত তুই একটু বস আমি একটু হিসু করে আসি। আমি বল্লাম, ঠিক আছে তুই যা। রেহানা বলল তুই কিন্তু লুকিয়ে আমাকে দেখবি না।

ঠিক আছে, দেখব না।

এই বলে রেহানা একটু দুড়ে আর একটি গাছের আড়ালে চলে গেল। আমার মাথায় তখন শয়তানী বুদ্ধি চেপে গেল। আমি এক দৌড়ে নিজেকে আড়াল করে রেহানার প্রাকৃতি কাজ সারার দিকে নজর দিলাম। দেখলাম রেহানা চারপাশে একবার দেখে নিল। এর পর তার ফর্সা পাছাটাকে বের করে বসে পড়ল। আমার মাথাটা কেমন যেন ঝিম ঝিম করে উঠল রেহানার ফর্সা ধব ধবে পাছা টা দেখে। কসম, আমি কোনদিনই এর আগে সামনা সামনি কোন নেঙটা মেয়ের পাছা দেখি নাই। আর ১৩/১৪ বছরের একটা মেয়ের পাছা.. ওহ কচি একটা পাছা, আমার কেমন যেন লাগছিল। মনে হচ্ছে একটা ঘোরের মধ্যে ঢুকে গেলাম। এই সময় রেহানা ফস ফস শব্দে হিসু করতে শুরু করল। আমি মাতালের মত তার পাছার দিকে তাকিয়ে আছি। হঠাত খেয়াল হলো রেহানা উঠে দাড়াচ্ছে। আমি এক দৌড়ে, আমার যায়গাতে চলে আসলাম। আমি

রেহানাকে বল্লাম হয়ে গেল?

হুম…

এত তাড়াতাড়ি…

বা রে কত সময় লাগে।

তাই তো….কত সময় লাগে।

আমি তখন বললাম, একটা কথা বলব তোকে…..

– কি কথা,

– রাগ করবি না তো,

– আরে রাগ করবো কেন?

– আমি না লুকিয়ে লুকিয়ে তোকে দেখেছি।

রেহানা হাসতে লাগল। আর বলল, আমি জানতাম তুমি আমাকে দেখবি।

তাহলে আমার সামনে এমন করে হিসু করতে গেলি কেন?

এমনি।

এই বলে রেহানা পুকুরের অন্য পাশে দৌড় দিল। আমিও ওর পিছু পিছু ছুটলাম। দৌড়ে গিয়ে আমি রেহানা কে জাপটে ধরলাম। ও বলল, এই ছাড় না। আমি বললাম, এই বল না, তুই কেন কিছু বললি না।

এমনি….(খিল খিল করে হাসতে লাগল)

আমি মনে মনে বুঝতে পারলাম রেহানা ইচ্ছ করেই তার পাছাটা আমাকে দেখিয়েছে। আমাকে যেন প্রলুব্ধ করতে চাইছে। আমি রেহানাকে জাপটে ধরেই বসে পড়লাম। আর বললাম, তোকে আজ এভাবেই ধরে রাখব।

বাহ রে,,,আমি তোর কে হই যে এভাবে ধরে রাখবি?

তুই আমার পাখি….

এই বলে আমি ওর হাত নিয়ে খেলতে লাগলাম। আর অমনি রেহানা ঘাসের উপর শুয়ে পড়ল..আর আকাশের দিকে তাকিয়ে রইল। আমি ওর হাত নিয়ে দেখছিলাম। কি সুন্দর হাত রেহানার। আজকে ও একটা টি শার্ট আর স্কার্ট পড়ে আছে। স্কার্ট টা একটু উপড়ে উঠে রেহানার হাটু বের হয়ে আছে। আমি কখনোই রেহানার দিকে অন্যভাবে তাকাইনি। আজকে যেন একটু ভিন্নতা ধরা পড়ছে, আমার চোখে। রেহানাকে আজকে অনেক আপন আর অনেক কাছের মনে হচ্ছে। মনে হচ্ছে, এই রেহানা সেই আগের রেহানা না। আমি আলতো করে রেহানার কপালে হাত বুলাচ্ছি। রেহানাআঙ্গুল দিয়ে ওর নাকে, ঠোটের উপর দিয়ে চিবুক হয়ে গলার পাশে নিয়ে আসলাম। রেহানা চোখ বন্ধ করে আছে। ওর বুকের উঠানাম যেন একটু বেড়ে গেল। আমি মুগ্ধ হয়ে রেহানার মুখের দিকে তাকিয়ে রইলাম।

আমি ভাল করে ওর বুকের দিকে তাকালাম। দেখলাম বেশ ভালই ফুলে উঠেছে রেহানার মাই দুটো। রেহানা তখন মনে হয় ব্রা পড়ে না। তাই বুকের বোটা দুটো আরো তীব্র এবং ফুটে আছে। যেন আমাকে আহবান করছে, ওর দিকে। আমি হটাত করেই রেহানার কপালে আলতো করে একটু চুমু খেলাম। রেহানা যেন একটু কেপে উঠল।আমি তখন আরো সাহস পেয়ে ওর গলার কাছে হাত বুলাতে থাকলাম। তারপর হাতটা নিয়ে ওর পেট এর উপর রাখলাম। এই প্রথম আমি রেহানার শরীর এর উত্তাপ টের পেলাম। একটু করে টি শার্টটা তুলে ওর নাভির উপর হাতটা রাখলাম। এমন সুন্দর নাভী আমি জীবনেও দেখি নাই। নাভীর চারপাশটা আমি আলতো করে নারছিলাম। আর খেয়াল করছিলাম রেহানার বুকের উঠানামটা আরো দ্রুততর হচ্ছে। আমি যেন এক মুগ্ধ বালক, এক নিষিদ্ধ গন্ধম আবিষ্কারে মত্ত। আর রেহানা যেন এক ইভ। আমি হাতটা ওর টি শার্টের ভিতরে ঢুকিয়ে দিলাম। দেখলাম কেমন নরম আর গরম দুটি গোলা যেন। আমি চেপে ধরলাম রেহানার দুধ দুটো। রেহানা আহ করে উঠল। আমি বললাম ব্যাথা পাচ্ছিস?

রেহানা বলল: না….

আমি টিপতে থাকলাম রেহানার উঠতি দুধ দুটি। বোটা দুটি যেন অনেকটা শক্ত হয়ে গেছে। আমি রেহানাকে বললাম,

এই আমাকে দেখতে দিবি তোর দুধ দুইটা।

রেহানা লজ্জায় লাল হয়ে গেল, মুখে কিছু বলল না।

আমি বুঝে নিলাম।

আমি রেহানার টি শার্টটা তুলে ফেললাম, আর তক্ষুনি গোলাপের পাপড়ির মত যেন ফুটে বেড় হল রেহানার দুটি কচি মাই। আমি এই প্রথম কোন মেয়েকে আবিষ্কার করছি। আমার উত্তেজনর শেষ নাই। আর রেহানাও প্রথমবারের মত তাকে উন্মোচিত করছে, কোন পুরুষের কাছে। আমরা দুজনেই যেন এক নিষিদ্ধতার মাঝে ডুবে আছি। আমি আর দেরি না করে আমার মুখটা নামিয়ে আনলাম ওর বোটার কাছে। বোটা টা জিভ দিয়ে চাটছি, আর অন্য হাতে অন্য মাই টা টিপছি। কি যে সুখানুভুতি হচ্ছিল, বলে বোঝানো যাবে না। রেহানাও আহ আহ করে সুখ নিচ্ছিল। আমি আরো জোড়ে চুষতে থাকলাম। যেন পুড়ো মাইটা আমার মুখের ভিতর চলে আসবে। রেহানা আমার মাথাটা জোড়ে চেপে ধরে আছে। আর আমার মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে। রেহানা তখন মুখ খলল,

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com